‘বেঁচে থাকলে স্বাধীন আরাকানে, নয়তো দেখা হবে জান্নাতে’

‘বেঁচে থাকলে স্বাধীন আরাকানে, নয়তো দেখা হবে জান্নাতে’

গত কয়েক দিনে মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের হত্যাযজ্ঞ ও বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদের ঘটনায় অন্তত ৮ হাজার রোহিঙ্গা নারী-শিশু বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। আরো কয়েক হাজার মানুষ সীমান্তে প্রবেশের জন্য অপেক্ষা করছে।

মানবাধিকার সংস্থাগুলোর হিসাব মতে, অন্তত ৪০ হাজার রোহিঙ্গাকে বাড়িছাড়া করা হয়েছে। তাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

বার্তা সংস্থা এএফপি বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়েছে, এবার আগের বাংলাদেশ আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে পুরুষদের সংখ্যা নেই বললেই চলে। যারা আছেন তারা সবাই কিশোর কিম্বা বুড়ো।

এর কারণ অনুসন্ধানে জানা গেছে, আরাকান রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মি (আরসা) এর আভির্ভাবের কারণে এবার পুরুষরা বাংলাদেশে পালিয়ে আসছেন না। তারা আরসা’র আহ্বানে সাড়া দিয়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধ করার জন্য আরাকানে থেকে যাচ্ছেন। সেখানে বিভিন্ন পাহাড়ে লুকিয়ে থেকে তারা সংগঠিত হচ্ছেন দীর্ঘ মেয়াদে যুদ্ধের জন্য। পালিয়ে আসা বৃদ্ধ ও নারীরা এমনটিই জানিয়েছেন।

আয়েশা বেগম নামে এক গর্ভবতী নারীর সাক্ষাৎকার নিয়েছে এএফপি। তিনি এখন বাংলাদেশে একটি ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছেন।

আয়েশা বলেন, ক’দিনের মধ্যেই তিনি তার ৬ষ্ঠতম সন্তানের জন্ম দেবেন। কিন্তু এসময়টি স্বামী কাছে না পেয়ে তার খারাপ লাগছে না। কারণ তার স্বামী তাদের সাথে পালিয়ে না এসে আরাকানে থেকে গেছেন সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য।

চোখের পানি ফেলতে ফেলতে আয়েশা তার স্বামীর ব্যাপারে বলেন, “সে আমাদেরকে (স্ত্রী-সন্তান) নাফ নদীর পাড়ে এনে দিয়ে গেছে। বিদায় জানানোর সময় সে বলেছে, যদি আমি বেঁচে থাকি তাহলে শিগগরিই তোমাদের সাথে স্বাধীন আরাকানে দেখা হবে। অার বেঁচে না থাকলে আমাদের দেখা হবে জান্নাতে।”

সূত্র: এএফপি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × 3 =