বাংলাদেশে মুসলমানের হার কমছে

বাংলাদেশে মুসলমানের হার কমছে

বাংলাদেশে গত ৫ বছরে মুসলমানের হার কমেছে ০.৪ ভাগ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) ২০১৬ সালের স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকস প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ পেয়েছে।

এ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১২ সালে দেশে মোট জনসংখ্যার ৮৮.৮ ভাগ ছিল মুসলমান, তবে ২০১৬ সালে এটি কমে দাঁড়িয়েছে ৮৮.৪ ভাগে।

গতকাল (সোমবার) বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো ‘বাংলাদেশ স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকস্ ২০১৬’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। শেরেবাংলা নগরস্থ এনইসি অডিটোরিয়ামে এই রিপোর্ট প্রকাশ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ব্যুরোর মহাপরিচালক মো. আমীর হোসেন।

এ প্রসঙ্গে মো. আমীর হোসেন গণমাধ্যমকে বলেছেন, এই হিসাব করা হয়েছে মূলত ধর্মভিত্তিক বিভাজনের পরিসংখ্যান থেকে।

বিবিএসের তথ্যানুযায়ী, দেশে জনসংখ্যা এখন ১৬ কোটি ১৭ লাখ ৫০ হাজার। তবে পুরুষ ও মহিলার সংখ্যা প্রায় সমান। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারির সবশেষ হিসাব অনুযায়ী দেশে এখন মোট পুরুষের সংখ্যা ৮ কোটি ১০ লাখ এবং মহিলার সংখ্যা ৮ কোটি সাড়ে ৭ লাখ জন।

বিবিএসের তথ্যানুযায়ী, ২০১২ সালে দেশের মোট জনসংখ্যা ছিল ১৫ কোটি ২৭ লাখ। ২০১৬ সালের ১ জুলাইতে এই জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৬ কোটি ৮ লাখে। আর গত ছয় মাসে মোট জনসংখ্যা বেড়েছে সাড়ে ৯ লাখ।

সরকারি পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, দেশে গত ৫ বছরে মুসলমানের হার কমলেও অন্য ধর্মের জনগোষ্ঠীর হার বেড়েছে। পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, গত দুই বছর ধরেই অন্য ধর্ম পালনকারীর হার বাড়ছে। বিশেষ করে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সংখ্যা বাড়ছে। ২০১৫ সালের হিসাবে, দেশের মোট জনসংখ্যার ১০ দশমিক ৭ শতাংশ হিন্দু ধর্মাবলম্বী ছিল। এর আগের বছর ২০১৪ সালে এই হার ছিল ৯ দশমিক ৯ শতাংশ।

বিবিএস বলছে, ২০১৫ সালে দেশের মোট জনসংখ্যা ছিল ১৫ কোটি ৮৯ লাখ। এর মধ্যে ওই বছর হিন্দু ধর্মাবলম্বীর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ৭০ লাখ। আগের বছর ২০১৪ সালে দেশের জনসংখ্যা ছিল ১৫ কোটি ৬৮ লাখ। তখন হিন্দু ধর্মাবলম্বীর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ৫৫ লাখ।

প্রসঙ্গত, এর আগে বাংলাদেশে সরকারি আদমশুমারি অনুযায়ী হিন্দু জনসংখ্যা প্রতি বছরই কমছিল। তখন বলা হচ্ছিল, বাংলাদেশে ধর্মীয় বৈষম্য এবং নির্যাতনের মুখে এদের বেশিরভাগই ভারতে চলে যাচ্ছেন।

১৯৫১ সালে যে আদমশুমারি হয়েছিল, তাতে তৎকালীন পূর্ব বাংলার হিন্দু জনসংখ্যা ছিল মোট জনগোষ্ঠীর ২২ শতাংশ। ১৯৭৪ সালের আদমশুমারিতে এই হার নেমে আসে ১৪ শতাংশে। ২০১১ সালের আদমশুমারিতে তা নেমে এসেছে ৮ দশমিক ৪ শতাংশে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবুল বারাকাতের ‘বাংলাদেশে কৃষি-ভূমি-জলা সংস্কারের রাজনৈতিক অর্থনীতি’ শীর্ষক এক গবেষণায় উল্লেখ করেছেন, ১৯৬৪ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ৫ দশকে মোট ১ কোটি ১৩ লাখ হিন্দু ধর্মাবলম্বী মানুষ দেশত্যাগে বাধ্য হয়েছেন। অর্থাৎ প্রতি বছর গড়ে ২ লাখ ৩০ হাজার ৬১২ জন হিন্দু ধর্মাবলম্বী নিরুদ্দেশ বা দেশত্যাগে বাধ্য হয়েছেন। আর প্রতিদিন দেশ ছেড়েছেন গড়ে ৬৩২ জন হিন্দু। গত বছরের নভেম্বরে গবেষণাটি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হয়।

তথ্যসূত্র: পার্সটুডে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × 1 =