উর্দুতে পরীক্ষা দেওয়া কতটুক যুক্তিসংগত?

উর্দুতে পরীক্ষা দেওয়া কতটুক যুক্তিসংগত?

এখনও অনেক মাদরাসায় উর্দুতে পরীক্ষা দেওয়া বাধ্যতামূলক। আরবী বা বাংলা গ্রহণযোগ্য নয়। অনেক মাদরাসায় উর্দুতে পরীক্ষা দেওয়ার প্রতি উৎসাহিত করা হয়। উর্দুতে পরীক্ষা দিলে নাম্বার বেশি দেওয়া হয়। এই মাদরাসাগুলোর ছাত্রদের বাংলা ও আরবীর জ্ঞান নেই বললেই চলে। এরা তাইসির, মিজান থেকে শুরু করে দাওরা হাদীস পর্যন্ত উর্দুতে পরীক্ষা দিয়ে থাকে। ফলে বাংলা হাতের লেখা, ভাষা, বানান সব কিছুতেই তাদের দুর্বলতা প্রকাশ পায়।
আরবী ভাষাও খুব কম বুঝে। আরবী হল কুরআন-হাদীসের ভাষা। যে কোন ফনের (শাস্ত্রের) অধিকাংশ কিতাব আরবী ভাষায়। ভাল আলেম হতে হলে অবশ্যই আরবীর উপর দক্ষতা প্রয়োজন। আর বাঙালি হিসেবে বাংলা ভাষায় কথা বলা, শুদ্ধ করে লিখা আবশ্যিক হিসেবে দাঁড়ায়। এই দুই প্রধান ভাষা বাদ দিয়ে তৃতীয় ভাষা উর্দুর প্রতি এই গুরুত্বারোপ করা কতটা যুক্তিসংগত? কতটুক সঠিক?

আদৌ কি এই নিয়মের কোন ভাল দিক আছে না পুরোটাই মাদরাসা কর্তৃপক্ষের হঠকারীতা?
না নিজেদের দুর্বলতা ঢাকার অপচেষ্টা?
মাদরাসা কর্তৃপক্ষের প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করে বলছি, এ নিয়ম বহাল রাখা ঠিক হচ্ছে না। শুধু উর্দুর প্রতি উদ্ভূদ্ধকরণ সঠিক হচ্ছে না। ছাত্রদের শেখার বয়সে তাদের বাংলা, আরবী থেকে দূরে রেখে দুর্বল আলেম হিসেবে গড়ে তুলা হচ্ছে। শিক্ষার বয়সে যদি তারা আরবী, বাংলা না শিখতে পারে কর্মজীবনে গিয়ে কীভাবে শিখবে? অপূর্ণাঙ্গ শিক্ষা নিয়ে ফারেগ হচ্ছে। এ থেকে পরিত্রাণের উপায় খুঁজতে হবে।

 

বাংলা, আরবী, উর্দু সমানতালে শেখানোর ব্যবস্থা করতে হবে। উর্দু থেকে আরবীর প্রতি গুরুত্ব বাড়াতে হবে। ইংরেজির প্রতিও গুরুত্ব দেয়া উচিত। ইংরেজির মাধ্যমে অনেক জ্ঞান অর্জন হয়। ইংরেজি বর্তমানে আন্তর্জাতিক ভাষা। দ্বীন অমুসলিমদের মাঝে প্রচার করার জন্য ইংরেজি ভাষা অপরিহার্য। কীভাবে দ্রুত উর্দুপ্রীতি থেকে বের হয়ে বাংলা, আরবী, ইংরেজি ভাষা শিখার ব্যবস্থা করা যায় তা নিয়ে সকলের চিন্তা করা উচিত।

লেখক: হাসান সিদ্দিকী, সহকারী মুফতী, জামিয়া মদীনাতুল উলূম ভাটারা, ঢাকা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × five =